ঢাকা শুক্রবার, অক্টোবর ৭, ২০২২

Popular bangla online news portal

জবিতে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হলো জাতীয় শোক দিবস


নিউজ ডেস্ক
১১:৩৩ - সোমবার, আগস্ট ১৫, ২০২২
জবিতে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হলো জাতীয় শোক দিবস

জবি প্রতিনিধি:: জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি) যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হলো জাতীয় শোক দিবস এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী।

সোমবার (১৫ আগস্ট)জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন ধরনের কর্মসূচি এবং অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। তার মধ্যে সকলে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে বিশ্ববিদ্যালয় ক‍্যাম্পাসে জাতীয় পতাকা(অর্ধনমিত) কালো পতকা উত্তোলন এবং কালো ব‍্যাজ ধারণ করেন।

এদিন সকল ১০ টায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় মুজিবমঞ্চে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. ইমদাদুল হক, ট্রেজারার অধ্যাপক ড. মো. কামাল উদ্দীন আহমদ, প্রক্টরিয়াল বডির সদস্য, শিক্ষক শিক্ষিকা, শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ। 

উপাচার্যের শ্রদ্ধা নিবেদনের শেষে পর্যায়ক্রমে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি, ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ছাত্রী হল, রোভার স্কাউটস, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রেসক্লাব, কর্মকর্তা সমিতি সহ অন্যান্য সংগঠনের পক্ষ থেকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

এরপর বেলা ১১ টায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় অডিটোরিয়ামে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয় এতে উপস্থিত ছিলেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো.ইমদাদুল হক, ট্রেজারার অধ্যাপক ড. মো.কমাল উদ্দীন আহমদ সহ বিভিন্ন অনুষদের ডীনরা।

উক্ত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অনুষদের ডীন অধ্যাপক ডা.আবুল হোসেন, লাইফ এন্ড আর্থ সাইন্স অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড.মো.মনিজ্জামান খন্দকার, বিজ্ঞান অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড.মো.শাহজাহান, কলা অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড.মো.রইছ উদ্দীন, শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. এ কে এম লুৎপর রহমান সহ আরও অনেকে।

শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. এ কে এম লুৎপর রহমান তার বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু চেয়ার এবং বঙ্গবন্ধু গবেষণা কেন্দ্র স্থাপন করার দাবি জানান।

ট্রেজেরার অধ্যাপক ড.মো.কামাল উদ্দীন আহমদ তার বক্তব্যে ১৯৭৫ সালের হত‍্যাকান্ডের বিষয়ে বলেন, এই হত‍্যাকান্ডে দেশি বিদেশী বিভিন্ন মহল জড়িত ছিল। এই নিয়ে তিনি বিট্রিশ সাংবাদিক লরেন্স লিসুর লেখা একটি উদ্ধৃতি তুলে ধরে বলেন বঙ্গবন্ধুর হত‍্যাকান্ডের নিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্টদূত ফিলিফ চেরি সাথ মেজর জিয়াউর রহমান এর একটি গোপন বৈঠকের হয়েছিল। যেখানে বঙ্গবন্ধু হত্যার পরিকল্পনা করা হয়েছিল।

উপাচার্য ড.মো.ইমদাদুল হক তার বক্তব্যে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট এর হত‍্যাকান্ডকে একটি অনেক দিনের পরিকল্পিত হত‍্যাকান্ড বলে উল্লেখ করেন এবং এতে আন্তর্জাতিক মহলের ষড়যন্ত্র-ও ছিল বলে তিনি জানান ।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সম্পর্কে বলতে গিয়ে তিনি বলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলেন একজন মহান নেতা যার চারিত্রিক দৃঢ়তা এবং সাহস আমি আর কোন নেতা মধ্যে দেখি নি। তিনি তার বক্তব্যে আরও বলেন ১৯৭৫ সালের হত্যাকাণ্ডের বিচার আইন করে বন্ধ করা হয়েছিল

এরকম নির্লজ্জ আইন পৃথিবীতে আর কোথাও কখনো হয়নি। এখনো আমাদের দেশ নিয়ে নানা ধরনের ষড়যন্ত্রের হচ্ছে। আমাদের সবাই কে এই ষড়যন্ত্রের মোকাবেলা করতে হবে। তিনি শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. এ কে এম লুৎপর রহমানের দাবির সাথে এক মত হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধু চেয়ার এবং বঙ্গবন্ধু গবেষণা কেন্দ্র স্থাপনের আশ্বাস দেন।

সর্বশেষ বাদ যোহর বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদে কোরআন খতম,দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়।