ঢাকা বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২২

Popular bangla online news portal

অনুদান নিয়েও যারা ছবি বানায়নি তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা : তথ্যমন্ত্রী


নিউজ ডেস্ক
১০:১৮ - বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ৮, ২০২২
অনুদান নিয়েও যারা ছবি বানায়নি তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা : তথ্যমন্ত্রী

সরকারি অনুদান নিয়েও যারা ছবি বানায়নি, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। এরইমধ্যে তাদের অনেকের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। 

বৃহস্পতিবার (০৮ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে চলচ্চিত্র শিল্পী, চিত্রগ্রাহক, সম্পাদক, পরিচালক, প্রযোজক ও পরিবেশক সমিতির নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাৎকালে তিনি এ কথা বলেন। 

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমি যখন এ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব গ্রহণ করি তখন চলচ্চিত্র শিল্পি সমিতির নেতারা আমার কাছে এসেছিলেন। তখন তারা আমাকে বললেন, যেসব ছবিতে অনুদান দেওয়া হয় এ রকম অনেক ছবি হলে মুক্তি পায় না এবং অনেকগুলো আর্টফিল্মের জন্য অনুদান দেওয়া হয়, অনেকে বানায় না। বানালেও সেটা কেউ জানে না। তবে আমরা তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া শুরু করেছি। অনেকের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।’

‘তারপর বাণিজ্যিক ছবির ক্ষেত্রেও যেগুলো অনুদান পেয়েছে সেগুলো হলে রিলিজ করা হয়নি, কাউকে সত্ত্ব বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে। সেজন্য আমরা ২০২০ সাল থেকে নীতিমালা করেছি, কমপক্ষে ১০টি হলে মুক্তি দিতে হবে, পরে সেটি বাড়িয়ে ২০টি করেছি।’

বিভিন্ন সমিতির নেতাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘চলচ্চিত্র শিল্প বহু কালজয়ী ছবির যেমন জন্ম দিয়েছে, বহু কালজয়ী নায়ক-নায়িকারও জন্ম দিয়েছে। আমাদের অনেক ছবি স্বাধীনতা আদায়ের আন্দোলন, স্বাধীনতা সংগ্রাম এবং স্বাধীনতার পর দেশ গঠনে অবদান রেখেছে। আমাদের বহু ছবি আন্তর্জাতিক অঙ্গনে পুরষ্কার পেয়েছে।’ 

তিনি বলেন, ‘সবচেয়ে আশার কথা হচ্ছে আমাদের ছবি এখন শুধুমাত্র দেশের সীমানায় সীমাবদ্ধ নেই, ইউরোপ-আমেরিকায় আমাদের ছবি প্রদর্শিত হয়।’ 

তিনি আরও বলেন, ‘আশার কথা এই চলচ্চিত্র শিল্প এখন ভালোর দিকে যাচ্ছে। একদিকে আমরা অনুদানের পরিমাণ দ্বিগুণ করেছি, আগে ১০ কোটি দেওয়া হতো, এখন ২০ কোটি টাকা দিচ্ছি। আগে একটি ছবির জন্য ৩০-৪০ লাখ দেওয়া হতো, এখন আমরা ৭৫ লাখে উন্নীত করেছি।’

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘যারা চলচ্চিত্রের অনুদান নিয়ে নির্মাণ করেননি, তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। প্রথমে নোটিশ দেওয়া হয়, প্রথম, দ্বিতীয় এবং তৃতীয় নোটিশের পর যখন কমপ্লাই করা হয় না তখন মামলা হয়। অনেকের বিরুদ্ধে মামলা আছে, এটার পরিপ্রেক্ষিতে অনেকে টাকা ফেরত দিয়েছে এবং ফেরত দিচ্ছে, যারা করতে পারেনি। আবার অনেকে সিনেমাটি বানাচ্ছে। সে সুযোগ আমরা দিচ্ছি।’