ঢাকা বুধবার, ফেব্রুয়ারী ১, ২০২৩

Popular bangla online news portal

গোল্ডেন মনিরের জামিন ২৮ নভেম্বর পর্যন্ত স্থগিত


নিউজ ডেস্ক
১০:১৪ - রবিবার, নভেম্বর ৬, ২০২২
গোল্ডেন মনিরের জামিন ২৮ নভেম্বর পর্যন্ত স্থগিত

রাজধানীর বাড্ডা থেকে অস্ত্র ও মাদকসহ গ্রেপ্তার মনির হোসেন ওরফে গোল্ডেন মনিরকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিন আগামী ২৮ নভেম্বর পর্যন্ত স্থগিত করেছেন চেম্বার আদালত। একইসঙ্গে মামলাটি শুনানির জন্য আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। ২৮ নভেম্বর আপিল বিভাগে এ বিষয়ে শুনানি হবে।

রোববার (৬ নভেম্বর) আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম এ আদেশ দেন।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে পক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল শেখ সাইফুজ্জামান জামান। আসামির পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম। ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল শেখ সাইফুজ্জামান জামান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে গত ২ নভেম্বর মনির হোসেন ওরফে গোল্ডেন মনিরকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিন আজ পর্যন্ত স্থগিত করেছিলেন চেম্বার আদালত।

গত ৩১ অক্টোবর হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ তাকে জামিন দেন।

২০২০ সালের ২১ নভেম্বর সকালে রাজধানীর বাড্ডা এলাকার নিজ বাসা থেকে গোল্ডেন মনিরকে আটক করা হয়।

এসময় তার বাসা থেকে ৬০০ ভরি সোনার গয়না, বিদেশি পিস্তল-গুলি, মদ, ১০ দেশের বিপুল বৈদেশিক মুদ্রা ও নগদ এক কোটি নয় লাখ টাকা জব্দ করা হয়।

এছাড়া তার বাড়ি থেকে অনুমোদনহীন দুটি বিলাসবহুল গাড়ি জব্দ করা হয়, যার প্রতিটির বাজারমূল্য প্রায় তিন কোটি টাকা। তার ‘অটো কার সিলেকশন’ নামে গাড়ির শোরুম থেকে আরও তিনটি অনুমোদনহীন বিলাসবহুল গাড়ি জব্দ করা হয়।

র‍্যাব জানায়, ঢাকা ও আশেপাশের এলাকায় দুই শতাধিক প্লট ও ফ্ল্যাটের মালিক গোল্ডেন মনির। রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) কয়েকজন কর্মকর্তার যোগসাজশে জালিয়াতির মাধ্যমে অসংখ্য প্লট হাতিয়ে নেন তিনি। তবে প্রাথমিকভাবে ৩০টি প্লট ও ফ্ল্যাটের কথা স্বীকার করেছেন মনির।

এর আগেও গোল্ডেন মনিরের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) ও রাজউকের একটি মামলা রয়েছে। মনির মূলত একজন হুন্ডি ব্যবসায়ী ও স্বর্ণের চোরাকারবারি। এ থেকেই মনির পরিচিতি পান ‘গোল্ডেন মনির’ হিসেবে।

আটক করার পর র‍্যাব বাদী হয়ে মনিরের বিরুদ্ধে অস্ত্র, বিশেষ ক্ষমতা ও মাদক আইনে তিনটি মামলা দায়ের করে।  

গত বছরের ২০ জানুয়ারি ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন আদালতে অস্ত্র ও মাদকের দুই মামলায় অভিযোগপত্র দাখিল করেন তদন্ত কর্মকর্তা ডিবির গুলশান বিভাগের পরিদর্শক আব্দুল মালেক। পরে অস্ত্র মামলায় গত বছরের ২৩ আগস্ট অভিযোগ গঠন করে আদেশ দেন ঢাকার মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ।

এ মামলায় বিচারিক আদালতে ব্যর্থ হয়ে হাইকোর্টে জামিন আবেদন করেন গোল্ডেন মনির।